মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C

চাচকিয়ার তাঁত শিল্প

 উপজেলা সদর হতে ১৫ কি: মি: পূর্বে কৃষি ও শিল্পের মিশ্রণে ব্রিটিশ আমল হতে গড়ে উঠেছে এক পরিশ্রমী জনপদ। যারা বাস করে একদন্ত ইউনিয়নের চাচকিয়া, নগর চাচকিয়া, চন্ডীপাশা, গোপালপুর, ষাইটগাছা, শিবপুর,কদিমবগদি গ্রামে। পিতৃ পুরুষের হাতে লালিত উত্তরাধিকারসূত্রে প্রাপ্ত তাঁত শিল্পের বয়ন এলাকায় উন্নতমানের লুঙ্গী, গামছা, শাড়ি ও চাদর তৈরিতে অবদান রেখে চলেছে। এ ইউনিয়নে বর্মমানে প্রায় ২২০০ তাঁত এবং পুরুষ-মহিলা মিলে প্রায় ১২,০০০ মানুষ এ শিল্পের সাথে জড়িত। এখানকার উৎপাদিত পণ্য স্থানীয় চাহিদা পুরণ করে দেশের অন্যত্র, এমনকি বিদেশেও রপ্তানী হয়ে থাকে।

 

হস্ত চালিত তাঁত কাঠ ও লোহার মিশ্রণে সহজভাবে তৈরী এমন এক প্রকার যন্ত্র যা মানুষ তার হাত ও পায়ের সমন্বয়ে চালনা করে থাকে। এটি চালাতে প্রায় ৮ বর্গ মি: জায়গার প্রয়োজন হয়। গ্রামীণ শিল্প এলাকায় তাতেঁর শব্দের সুর শুণে মনে হয় এরা যেন সুরের তালে ভাগ্যকে আমন্ত্রণ জানাচ্ছে।

 

প্রচলিত অর্থে বাংলাদেশের সবচেয়ে পুরনো এবং বৃহত্তম শিল্প হলো তাঁত শিল্প। সপ্তদশ শতকের গোড়ার দিকে এ অঞ্চলে তাঁত শিল্পের প্রচলন শুরু হয়। তাঁত শিল্প শুধু এ অঞ্চলেই নয় গোটা ভারতীয় উপ-মহাদেশেই অর্থনৈতিক দিক থেকে কার্যকরী ও গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে আসছে। স্বাধীনতার পরবর্তীকালে সরকার তাঁত শিল্পের উন্নয়নে ১৯৭৮ সালে বাংলাদেশে তাঁত বোর্ড গঠন করে। শ্রমঘন মহিলাদের কর্মসংস্থান সৃষ্টি পণ্যের চাহিদা এবং এর লাভ বিবেচনায় এটি সরকারের নিকট বর্তমানে অগ্রজ সেক্টর হিসেবে বিবেচিত হচ্ছে।

 

বেকার সমস্যা সমাধানের পাশাপাশি এ সেক্টরটিকে GDPতেও গুরুত্বপূর্ণ অবদান রেখে চলেছে। সরকার এ শিল্পের উন্নয়নে গুরুত্ব দিয়ে আগ্রহ সহকারে কাজ করে চলেছে।